Know for sharing | Bangladeshi first mobile based tech forum and community

Saturday, 14 September 2019

নতুন ধরনের প্রতারণার শিকার সাধারণ মানুষ, খোয়াচ্ছেন লক্ষ লক্ষ টাকা



ইন্টারনেটের মাধ্যমে জালিয়াতির খবর এখন প্রায়শই শোনা যায়। এটিএম হ্যাকিং, মেসেজের মাধ্যমে জালিয়াতি, পেটিএম, ইউপিআই ইত্যাদি প্ল্যাটফর্মে জালিয়াতি এগুলি ছাড়াও আরো অনেক পদ্ধতিতে হ্যাকাররা আপনার ব্যাংকের টাকা চুরি করে নিতে পারে। সম্প্রতি জালিয়াতরা জালিয়াতির একটি নতুন পথ হিসেবে বেছে নিয়েছে গুগল সার্চ-কে।
কয়েকদিন আগেই গুগল সার্চের এক মহিলা সুইগী গো-এর কাস্টমার কেয়ার নম্বর খুঁজতে গিয়ে এই জালিয়াতির শিকার হলেন। গুগল-এ আপলোড করা সুইগী গো-র নম্বরটি ভুয়ো ছিল এবং সে মহিলার ফোনটি জালিয়াতদের কাছে পৌঁছে যায়। এবং জালিয়াতরা সেই মহিলাকে তাদের ফাঁদে ফেলে তার অ্যাকাউন্ট থেকে ৯৫ হাজার টাকা চুরি করে নেয়। আসুন দেখে নিই কিভাবে এই ঘটনাটি ঘটেছিল এবং এই ধরনের হ্যাকিং থেকে আপনারা কিভাবে বাঁচবেন।
গুগলে আপলোড করা থাকে ভুয়ো কাস্টমার কেয়ার নম্বর-
গুগলে জালিয়াতরা বিভিন্ন প্রচলিত কোম্পানির ভুয়ো কাস্টমার কেয়ার নম্বর আপলোড করে রাখে। তারা ওই কোম্পানির নকল ওয়েবসাইটের ব্যবহারও করে থাকে। গুগলের ভাষায় একে ফেক বিজনেস লিস্টিং বলা হয়। সাধারণ ব্যবহারকারীরা এই নাম্বারগুলিকে আসল ভেবে ভুল করে এবং জালিয়াতদের ফাঁদে পা দিয়ে দেয়। সবচেয়ে আশ্চর্যজনক ব্যাপারটি হলো ভুয়ো কাস্টমার কেয়ার নম্বরের তালিকায় জোমাটো, সুইগী, পেটিএমের মত কোম্পানি এমনকি গুগল পে-ও রয়েছে।
সেই কোম্পানির ঠিকানা অবধি বদলে দেওয়া হয়-
গুগল ম্যাপ এবং গুগল সার্চে তথ্য এডিট করার অপশনটির মাধ্যমে জালিয়াতরা সেই কোম্পানির ঠিকানা অবধি বদলে দেয় যাতে সাধারণ মানুষকে তারা একেবারে সঠিক ডিটেইলস পাঠাতে পারে। তার ফলে তারা নিজেদের সব তথ্য সঠিক ভাবে দিয়ে দেয়।
এবং নিজেদেরকে কাস্টমার কেয়ার এক্সিকিউটিভ দাবি করে আপনাকে আপনার ফোনে বিভিন্ন রিমোট অ্যাপ যেমন-টিমভিউয়ার, এনিডেস্ক ডাউনলোড করতে বাধ্য করা হয়। যখনই আপনি সেই অ্যাপটিকে ডাউনলোড করেন তখন আপনার কাছে তারা একটি নম্বর চায় যেটি ওই অ্যাপের প্রথম স্ক্রিনে দেখা যায়। নম্বরটি পেয়ে গেলে আপনার ফোনটি তাদের কম্পিউটারের সঙ্গে কানেক্ট হয়ে যায় এবং তারা আপনার ফোনের স্ক্রিনে চলা সমস্ত তথ্য তাদের নিজেদের কম্পিউটারে বসে দেখতে পারে। এর ফলে আপনার অ‍্যাকাউন্ট থেকে টাকা চুরি করা অনেক সহজ হয়ে যায়।
কিভাবে বাঁচবেন-
স্মার্টফোনে শুধু অফিশিয়াল অ্যাপের ব্যবহার করুন-
জালিয়াতরা কিছু কিছু ক্ষেত্রে নকল অ্যাপের মাধ্যমে ব্যবহারকারীদের ব্যাংকের সমস্ত ডিটেইলস চুরি করে নেয়। উদাহরণস্বরূপ এমন কিছু ক্যালকুলেটর অথবা টর্চের অ্যাপ আছে যারা আপনার কন্টাক্ট ডিটেইলস এবং আপনার ফোনের সমস্ত ফাইল ডিটেইলসের পারমিশন চায়। প্লে স্টোর থেকে যেকোনো অ্যাপ হঠাৎ করে ইন্সটল করে দেওয়ার আগে অবশ্যই দেখে নেবেন যে সেই অ্যাপটি কি কি পারমিশন চাইছে। যদি মনে হয় যে পারমিশন বেশি চাইছে তাহলে অ্যাপটিকে আনইন্সটল করে দিন। শুধুমাত্র অফিশিয়াল অ্যাপ ব্যবহার করুন। এবং যদি প্রয়োজন হয় তাহলে সেই অ্যাপে থাকা অফিশিয়াল কাস্টমার কেয়ার নম্বরেই ফোন করুন। গুগল থেকে দেখে অন্য কোন নম্বরে প্রথমেই ফোন করে দেবেন না।
জালিয়াতি করা হয়েছে মনে হলে তৎক্ষণাৎ ব্যাংকের অফিশিয়াল কাস্টমার কেয়ার নম্বরে ফোন করুন-
যদি আপনার কোন ক্ষেত্রে মনে হয় যে আপনার সঙ্গে কোন জালিয়াতি করা হয়েছে তাহলে তৎক্ষণাৎ আপনার ব্যাংকের অফিসিয়াল কাস্টমার কেয়ার নম্বরে ফোন এবং তাদের নিজের সমস্যার কথা বিস্তারিতভাবে বলুন। ইন্টারনেটে কাস্টমার কেয়ার নম্বর বলে অনেক ভুয়ো নম্বর দেওয়া থাকে তাই একমাত্র আপনার ব্যাংকের অফিসিয়াল নম্বরেই ফোন করবেন। এবং অবশ্যই কোন ফেক অফারের জালে জড়িয়ে পড়বেন না।

No comments: